শ্রীজাতের কবিতা লইয়াও আলাপ করি

শ্রীজাত লিখছেন, “প্রতি নির্বাচনে আমরা শতাব্দীপিছনে ফিরে যাই।” কোলকাতা বা ঢাকা, এলিটিস্টরা এমনই। এরা সবচে বেশি ডরায় ইলেকশন। নিজেদের শাসন আর গদি খোয়ানোর নাম দেয় হিস্ট্রির পিছে যাওয়া। ক্লাস আর রেসের দেমাগে ছোটলোকের লগে কালচারাল ডায়লগে যাইতে নারাজ, কমন কোন এসথেটিক প্লাটফর্মে উঠবে না, আনটাচেবল হিসাবে ট্রিট করবে এলিটিস্টরা। তারপর জনতার কনসেন্ট লইয়া পলিটিক্স করতে …

জিএম গরু: গরু জবাই না কইরাই গরুর গোশত 

যেই লেভেলের যেইসব পোস্টের অ্যাক্টর হবার কথা ছিল আমাদের, সেই সেই পোস্টের অ্যাক্টর হিসাবে আমাদের দায়িত্ব মানে জব রেসপন্সিবিলিটি (জেডি) ঠিকঠাক পালন করতে পারলাম আমরা। এ্য টোস্ট টু আওয়ার সাকসেস। আমরা বুদ্ধের বা জৈন চিন্তা থেকে এনভায়রনমেন্টালিজম পর্যন্ত–এ হিউজ কালেকশান অব থিঙ্কিং এস্তেমাল কইরা কোরবানী দেওয়া মডার্ন মোসলমানদের ভিতর একটা রেগরেট বা পাপবোধ ঢুকাইয়া দিতে …

হাউ টু মেক এ লজিক?

হাউ টু মেক এ লজিক? লজিক বানাইতে হিস্ট্রিক্যল কনটেক্সট মাথায় রাখা দরকার খুব। ‘ভায়োলেন্স এগেইনস্ট উইমেন’-এর ব্যাপারে আপনে ধরেন লজিক দিলেন একটা–‘সাচ্চা এরিয়ান মর্দ এমন করে না।’! হিস্ট্রিক্যল কনটেক্সট মাথায় রাখলে এমন লজিক দিতেন না আপনে! এই লজিকে দেখেন, মর্দের একটা স্টেরিওটাইপ বানাইছেন আপনে, এইটা গৎ বান্ধা চিন্তা, হিউম্যান ডাইভার্সিটি/প্লুরালিটি ধরতে পারতেছেন না আপনে, বা …

মব

আপনে ধরেন অক্সফোর্ডে পিএইচডি করছেন, ডকিন্স আপনের সুপারভাইজর আছিল, আপনের থিসিসের টপিক ‘ইভোল্যুশন অব পেনিস’, অ্যামিবার মতো একটা সিঙ্গেল সেল অর্গানিজমের ধোন থিকা মানুষের ধোন কেমনে হইলো… এখন, আপনের লগে আমার দেখা হইলে কইলাম, ‘তুই তো একটা ইলিটারেট বেকুব।’, আপনের ইগো তখন জখম হবে না, আপনেরে ‘তুই’ কইলাম বলে আপনের ফিলিং জখম হবে না? কইতে …

দুবার বামের কবলে আওয়ামী লীগ, দুবারই গণতন্ত্র উচ্ছেদ

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে হাস্যকর বিষয়গুলির একটা তালিকা প্রকাশিত হলে ভালো হবে। দেশের নাগরিকদের হাসির উপলক্ষ প্রায় নেই ইদানিং! তাঁরা হাসির কিছু বিষয় পাবে হয়তো; নাগরিকরা মনে এবং ভাবনায় প্রধানমন্ত্রীর মতো হয়ে উঠে হলেও হাসির কিছু উপলক্ষ পাবে। খুবই উপকার হবে নাগরিকদের; কেননা, প্রধানমন্ত্রীর থেকে ভিন্ন কিছু ভাবা, করা, হাসা দেশে আর বৈধ আছে কি? …

আমাদের রেসিস্ট ইতিহাস

দেশের মেইনস্ট্রিম ইতিহাসতত্ত্বে বাঙালিকে একটা ‘সংকর’ জাতি হিসাবে চিনাইয়া দেওয়া হয়; শুরুতে বোঝা দরকার, এইটা একটা রেসিস্ট আইডিয়া। এইটা গোপনে কাজ করে আমাদের বুলিচিন্তায়ও; ‘বাংলা’কে চিনাইয়া দেওয়া হয় ‘সংকর’ বুলি হিসাবে। এই আইডিয়া ‘খাঁটি’ না হবার দুঃখ লুকাইয়া রাখে নিজের ভিতর, ‘খাঁটি’ হইতে চাইতে থাকে, খুঁজতে থাকে উৎস। এই ফর্মে এবং মিনিং তৈরিতে জার্মান ম্যাক্সমুলারের …