ফিলিস্তিনে বোমা মারা কাজে দেবে ভালো

ইরাকে খিলাফত প্রতিষ্ঠারে মোকাবেলা করবে কেমনে ওবামা? সরাসরি যুদ্ধ করাটা মার্কিন পররাষ্ট্রনীতি বা সাম্রাজ্যবাদে সাবেক এখন। যুদ্ধ তো করা যাবে না, তাইলে?

খিলাফতঅলারা এন্টি-শিয়া, তারা সূন্নীদের যোগ দেবার ডাক দিছে, শিয়াপ্রধান সরকার নিয়ন্ত্রিত এলাকা দখল করছিলো একের পর এক। এদেরকে তো থামানো দরকার ওবামা প্রশাসনের।

ফলে, ফিলিস্তিনে ইসরাইলী বোমা মারা কাজে দেবে ভালো; খিলাফতের টেরিটোরি বড়ো করার চাইতে জেহাদিদের জরুরী জেহাদ হইলো তখন ইসরাইলের সাথে যুদ্ধ করা। খিলাফতঅলা বনাম ইসরাইল যুদ্ধ শুরু হইলে ইরান কি ইসরাইলের বিরুদ্ধে যাবে? না। অন্যান্য আরব বাদশাহ-শেখরা? না। যুদ্ধটা নিতান্তই খিলাফতঅলা আইসিস বনাম ইসরাইল; মধ্যপ্রাচ্যে সার্বিক যুদ্ধ হবে না মোটেই। সেই সুযোগে নূরি মালিকির ইরাক সরকারও খিলাফতঅলাদের উৎখাত করতে পারবে।

শিয়া মুসলিম-ইসরাইল নয়া জোট হইলো এতে, সূন্নী জেহাদিদের বিরুদ্ধে। আরব বাদশাহদের উৎখাত করতে চাওয়ায় আইসিসের বিরুদ্ধে যুদ্ধে সূন্নী বাদশাহদেরও পাশে পাচ্ছে ইসরাইল। মুসলিম-খৃস্টান-ইহুদী সরল ভাগাভাগির তুলনায় মধ্যপ্রাচ্যের ডাইমেনশন অনেক বেশি।

[iframely url=https://www.facebook.com/rk.manu/posts/10152162400887027/]