রক মনু

বাণিজ্য করা শেখেন

আপনি কলু হইতে রাজি হইয়া আছেন কিন্তু বিএনপি আপনার বলদ হইতে রাজি না; তাইলে বেশি বুদ্ধি কার?

বিএনপিরে জামাত ছাড়তে সাজেস্ট করেন অনেকেই; শাহবাগ এন্ড গং (মানে শাহবাগ নেটওয়ার্ক) একই আবদার করছেন। বিএনপি-জামাত যুদা করা বহুদিনের আওয়ামী প্লান; ফলে যে-ই জামাত থেকে যুদা হইতে বলবে বিএনপি তারেই ভাববে আওয়ামী লীগের বাছুর; অন্য কিছু ভাবার কোন যুক্তি নাই।

-------------------------

এইবার অন্যভাবে হিসাব মিলাই একটা; বিএনপি জামাতরে না ছাড়লে কি ভোট কমে আদৌ? না। পরামর্শ মতো জামাতরে ছাড়লেও এই অ্যাডভাইজাররা আওয়ামী লীগরেই ভোট দেবে; বিএনপির প্রতি এদের অভিযোগগুলি জামাত ছাড়ার পরেও বহাল থাইকা যায়! অভিযোগগুলি হইলো জামাত পুনর্বাসন, ধর্মের ব্যবহার, পাকিস্তান জিন্দাবাদ-এর অনুকরণে বাংলাদেশ জিন্দাবাদ ইত্যাদি। তাই জামাত ছাড়ার পরেও এরা বিএনপিরে ভোট দেবে না কেউ। অর্থাৎ ভোট বাড়ে না আদৌ; উল্টা জামাতের ভোটগুলি হারায়! ওদিকে এদের ভোট ছাড়াই তো বিএনপি’র জেতার রেকর্ড আছে! তাইলে বলেন বিএনপি কেন আপনার বলদ হবে? জামাত ছাড়া মানে বিএনপির আওয়ামী লীগে যোগ দেওয়া!

কিন্তু বিএনপিরে আপনার বলদ বানাইতে পারেন; শর্ত হইলো আপনে কলু হইতে পারবেন না! শাহবাগ নেটওয়ার্ক যদি ঘোষণা দেয় যে তাঁরা বিএনপিরে ভোট দেবে যদি বিএনপি এই এবং এই করে; এবং শাহবাগ নেটওয়ার্কের এইটাও প্রমাণ করতে হবে যে তারা ভোট সংখ্যায় জামাতের চাইতে বেশি।

টেকনিক্যালি এইটায় কোন সমস্যা নাই; আ. লীগ তো বিচার করছেই আ. লীগের বাইরের যুদ্ধাপরাধীদের, এখন বিএনপিরে যদি রাজি করানো যায় যে তাঁরা আওয়ামী লীগের মধ্যের যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করবে তাইলে বিচার সাউন্ড হবে। এদিকে এতে আ লীগ তো মহা বিপদে পইড়া যাবে; সে বিএনপির চাইতে আগাইয়া থাকার জন্য পাকিস্তানের বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধ এবং ক্ষতিপূরণের মামলা করতে রাজি হবে। বিএনপি ভারতের বিরুদ্ধে সীমান্ত হত্যার অভিযোগে মামলা করবে, ট্রানজিট বন্ধ করার হুমকি দেবে; আওয়ামী লীগের বিপরীতে ভারতের কাছ থেকে ট্রানজিটের জন্য শুল্ক নেবার কথা বলবে।

আপনার যদি এক কোটি ভোট থাকে তাইলে সেইটা অতি বড়ো বড়ো ঘাস; আপনে লীগ বা বিএনপি দুইটারেই আপনার বলদ বানাইতে পারেন। বাণিজ্য করা শেখেন।

[iframely url=https://www.facebook.com/rk.manu/posts/10151280403827027/]