রক মনু

ওনার পক্ষে কোন উকিল খাড়ায় নাই

সোহেল রানাকে আবারো রিম্যান্ডে দিছেন আদালত; ওনার পক্ষে কোন উকিল খাড়ায় নাই; আইনজীবী সমিতির নিষেধাজ্ঞা ছিলো নাকি!

তো, আমাদের উকিলদের সংগঠন একটা নৈতিক প্রতিষ্ঠান হইয়া উঠছেন; রিম্যান্ডে নেওয়ার বিরোধিতা না করার নীতিটা কেমন? রিম্যান্ডে নিয়া পুলিশ কী করে তা জানার কোন উপায় জনগণের নাই; যে কোন কিছুই করতে পারে; পুলিশ হেফাজতে থাকা কেউ আত্মহত্যা করছেন–এমন দাবিও পুলিশ করছে অতীতে; আত্মহত্যা আর খুনের ভেদাভেদ বোঝারো কোন উপায় নাই জনগণের; রিম্যান্ডে মারধোরের অভিযোগ বহু লোক করলেও তাতে কোন পুলিশের শাস্তির কথা শোনা যায়নি এখনো; কেননা মারধোরের অভিযোগ প্রমাণের কোন উপায়-ই রিম্যান্ড ব্যবস্থায় নাই!

-------------------------

এই রকম একটা পরিস্থিতিতে যে আইনজীবী সংগঠন রিম্যান্ডে দেবার বিরোধিতা করার নৈতিক গ্রাউন্ড পায় না সেই সংগঠনের ন্যায়বিচারের আইডিয়াটা আসলে কেমন?

সোহেল রানার বিষয়টার আরো কিছু আসপেক্ট আছে; রানা প্লাজা পইড়া যাবার আগে পর্যন্ত উনি বেশ পাওয়ারফুল লোক ছিলেন; টাকা-পয়সাও ভালো কামাইছেন অনুমান করা যাইতেছে; রিম্যান্ডে নেওয়া পুলিশের সাথে সেই টাকার কোন সম্পর্ক তৈরি হবে কি এই রিম্যান্ডের ঘটনায়?

এই রিম্যান্ডের ঘটনায় যাঁরা খুশি তাঁরা পুলিশের অপরিসীম রিম্যান্ড ক্ষমতা নিয়াও কিছু ভাববেন কি? ওদিকে আইনজীবী সংগঠন কি অন্যান্য সকল খুনি-বাসার কাজের লোকের পিঠে ছ্যাকা দেওয়া-রেপিস্ট-ওয়ার ক্রিমিনাল–কাউকেই আদৌ অপরাধী (নাকি পাপী?) ভাবেন না যে সেই সব ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা দেন না? এই আইনজীবী সংগঠনের কাছে সোহেল রানাই একমাত্র ত্যাজ্য?

এই আইনজীবী সংগঠনের প্রতি নিন্দা জানাই; এরা অভিযুক্তরে কেবল রিম্যান্ড আর দণ্ড দিতেই চাইছেন না; ওনারা অভিযুক্তের পক্ষে একজন উকিলও খাড়াইতে দিবেন না!

এদিকে গুরুতর প্রশ্ন হইলো–অভিযুক্তের পক্ষে কোন উকিল না থাকলে কি আদৌ বলা যায় যে– অভিযোগ প্রমাণিত হইলো?

[iframely url=https://www.facebook.com/rk.manu/posts/10151390922607027/]