রক মনু

আমার প্রথম অনুবাদ কবিতা

বিডিনিউজের আর্টস-এ সম্পাদনা বিভাগে ব্রাত্য রাইসু’র সহযোগী হিসাবে কাজ করতাম তখন। নোবেল পাবার পরে টমাস ট্রান্সট্রোমারের একটা সাক্ষাৎকারের অনুবাদ করছিলেন ফাতেমা সুলতানা শুভ্রা। সাক্ষাৎকারের মধ্যে কিছু কবিতা ছিলো।

 সেগুলি শুভ্রা ইংরাজিতেই রাখছিলেন সম্ভবতঃ; সময়ের অভাবে সেগুলি আর ওনাকে অনুবাদ করতে না বলে আমি অনুবাদ করে দেই। শুভ্রা বলছিলেন আমার নাম দিতে; আমি আর দেই নাই। এখন মনে হয়, না দেওয়াটা ঠিক হয় নাই। শুভ্রা যা করে নাই তার দায় নিতে হইছে তাঁর, আর আমি গোপন থাইকা গেলাম। কাজটা ভালো হয় নাই হয়তো; কিছু বিনয় বা সম্পাদকের আড়ালে থাকা দরকার–এমন একটা ভাবনাও থাকতে পারে ভিতরে। মোটের উপর, সম্পাদকীয় পাওয়ার দেখানো হইছে এইটা; পাওয়ারফুলের বিনয়ও খারাপ প্রায়ই!

-------------------------

 

তো এখন শুভ্রার সাথে আলাপ করলাম; ভাগাভাগি পরিষ্কার করতে চাইলাম। উনি অনুমোদন দিলেন আমারে। তাই এইখানে প্রকাশ করলাম।

 

সাক্ষাৎকারের আর্টস লিংক: http://arts.bdnews24.com/?p=4076

 

 

‘রৌদ্রে বসে আছে এক গুবরে পোকা,

বিদ্যুতের খাম্বার গায়ে।

তার ডানার উজ্জ্বল প্রচ্ছদ, আশ্চর্য দক্ষতায় গুটানো—

নিপুণ হাতে ভাজ করা প্যারাস্যুট যেন।’

–দ্য ক্লিয়ারিং

 

কাজের মাঝখানে

বিস্তর সবুজের বন্য বাসনা শুরু হলো আমাদের,

খোদ বন্যতার প্রতি–

কেবল যতটুকু আসতে পারে

টেলিফোন তারের ক্ষীণ সভ্যতায়।

–On The Outskirts of Work

 

মুরগীটা হাতে নিয়ে

আমি থমকে গেলাম।

অদ্ভুত, মনে হলো না—সে জীবিত:

ঠাণ্ডা, শুকনো,

সাদা পালকে বোনা

পুরনো একটা লেডিস হ্যাট যেনো—

চিক্কুরে বলে যাচ্ছে ১৯১২’র তাবৎ সত্য।

 

একজন মানুষ,

সামনে স্বর্গীয় লণ্ঠন

আলো জ্বেলে ধরে–

কিন্তু পরক্ষণেই নিভে যায়।

কেন?

– The Golden Wasp”, Ironwood, Vol. 16

 

অভিসার সেরে রাস্তায় বেরোল সে,

দ্যাখে—

তুষারের সাথে বাতাসের খুনসুঁটি।

–সি মেজর