কোন ওষুধ কি মিসক্যারেজ ঠেকাইতে পারে?

আমার বউয়ের পেটের মধ্যেই আমাদের মেয়ের ভ্রুণ তখন। মেয়ের নাম এখন পার্লিন অপার; আমার বউ রাখছে অস্মিতা; আমার অপছন্দ এইটা। বয়স বাড়লে হয়তো একটাও পছন্দ করবে না ও; না করুক; কিন্তু উপায় নাই; নাম ছাড়া তো রেজিস্ট্রেশন করা যায় না কোথাও! নাম রাখতে আপনে বাধ্য!

ওর মায়ের পেট থেকে ওরে বাইরে আনার পর থেকে হিসাব করলে ১ বছর ৩ মাস বয়স এখন ওর। চাইরটা দাঁত। হাসে, খায়, কান্দে, কোলে উঠতে চায়; ভালোই।

-------------------------

প্রেগনেন্সি টের পাবার পরে পরেই এক ডাক্তারের কাছে গেলো আমার বউ। একটু একটু ব্লিডিং হয়; ভয় পাইলো আমার বউ। স্কয়ার হসপিটালে গেলো। ডাক্তারের নাম ভুইলা গেছি; এখন নাই আর তিনি স্কয়ারে; নেটে দেখছিলাম ওয়ার্ল্ড হেল্থ অর্গানাইজেশনে চইলা গেছে।

ডাক্তার আমার বউরে মেডিসিন দিলো; ডুফাস্টোন আর ভার্টিনা প্লাসের কথা মনে আছে। বমি পায় বলে ভার্টিনা প্লাস; ব্লিডিং তথা মিসক্যারেজ ঠেকাবার জন্য ডুফাস্টোন। ডুফাস্টোন দামি মেডিসিন; ১০টার এক পাতা তখন ২৯০০ টাকা ছিলো মনে হয়। ডুফাস্টোন খাওয়া শুরু করলো ও। ও মা, বমি মারাত্মক বাইড়া গেলো! কিছুই থাকে না পেটে; কিছু করতেও পারে না; বমি করতে করতে পুরা বডি ব্যথা হইয়া গেছে; অফিস করা বন্ধ প্রায়! ফুল বেড রেস্ট!

বিষয়গুলি লজিক্যাল লাগলো না আমার। আমি নেটে খোঁজা শুরু করলাম। পইড়া-টইড়া তো পুরাই বেকুব মনে হইলো নিজেরে!

প্রেগনেন্সির সময় ডুফাস্টোন নিষিদ্ধ আমেরিকাসহ কয়েকটা দেশে; এইটা হরমোনাল মেডিসিন। মেইল হরমোন। মিনস্ট্রেশান প্রবলেম, সেক্সুয়াল সার্জারি, ফার্টিলিটি ইস্যু ইত্যাদি ক্ষেত্রে ডুফাস্টোন প্রেসক্রাইব করা হয় সাধারণত। বহু ডাক্তার প্রেগনেন্সির বেলায়ও প্রেসক্রাইব করে।

আমি লজিক বুঝতে চাইলাম। ডুফাস্টোন নিলে জরায়ুর ওয়াল শক্ত হবে এবং জরায়ু মুখ সংকুচিত হবে। এতে নাকি ভ্রুণ আর বাইরাইতে পারবে না, মিসক্যারেজ হবে না! ধরেন, ভ্রুণ ভিতরে মইরা গেলো এবং জরায়ু মুখ দিয়া বাইরাইতে পারলো না—তখন কী হবে? অপারেশন কনফার্ম; হসপিটালাইজেশন।

এদিকে যেই ভ্রুণ পুরা ফিট না, বা আপনার বডি প্রেগনেন্সির জন্য উপযোগী অবস্থায় নাই—এই ইস্যুগুলিরে যদি মিসক্যারেজের সাধারণ কারণ ধরি তাইলে এইটা ঠেকাবার ফল কী? আপনে একটা অটিস্টিক বাচ্চা পাইতে পারেন; বা আপনি নিজেই মইরা যাইতে পারেন।

আবার ডুফাস্টোন মেইল হরমোন হবার কারণে এইটা নেবার পরে মেয়েদের বড়ো বড়ো দাড়িগোঁফ হইতে পারে; বুকে লোম গজাইতে পারে! আপনার পেটে মেয়ে বাচ্চা থাকলে সে বড়ো হইতে হইতে ক্রমে তার মেইল অর্গান ডেভল্যপ করতে পারে; ট্রান্সসেক্সুয়াল হইয়া উঠতে পারে!

সব শেষে, আপনি তো মিসক্যারেজ ঠেকাবার জন্য ডুফাস্টোন নিছিলেন; কিন্তু ডুপাস্টোন কেন, কেন মেডিসিন মিসক্যারেজ প্রিভেন্ট করতে বা ঠেকাইতে পারে তেমন কোন মেডিক্যল প্রুফ নাই! ডাক্তার তাইলে কেন ডুফাস্টোন প্রেসক্রাইব করে? এর একমাত্র যৌক্তিক জবাব হইলো কোম্পানির টাকা খাইয়া; যদ্দূর মনে পড়ে, বাংলাদেশে ডুফাস্টোন ইমপোর্ট করাদের ভিতর স্কয়ারের নামও পাইছিলাম।

আমরা পরে ডাক্তার চেইঞ্জ করি; ডুফাস্টোন নেওয়া বাদ দেই। কয়টা যে খাইছিলো মনে নাই; এখন ভয়ে ভয়ে মেয়ের বড়ো হওয়া দেখতেছি। তো, ডুফাস্টোন খাইবেন আপনি? ডাক্তারদের চাইতে বেশি বুঝবেন সব সময়।