হেলমেট দিয়ে ছোটলোক খেদান

আপনাদের প্রোবলেম নিয়া ভাবি আমি। আজ যেমন ভাবছি সাইক্লিং নিয়া। ভালো জিনিস তো, করছেন নাকি সাইক্লিং?

বুঝতে পারি, মাঝে মাঝে করছেন; সব সময় না। সাইক্লিং উৎসব করছেন, কয়েকজন বন্ধু নিয়ে হাতির ঝিলে বা মানিক মিয়া এভিনিউতে সাইকেল চালাচ্ছেন রাতে বা ছুটির দিনের সকালে, পরে বিজয় স্মরণী যাইয়া হয়তো ছবি তুললেন একটা, ফেসবুকে দিলেন…

-------------------------

এমন তো করাই যাচ্ছে রেগুলার, তবে অকেশনালি; কিন্তু প্রতিদিন অফিসে কি যাচ্ছেন, পাশে হটপট ঝুলানো? বা কাওরানবাজার যাচ্ছেন নাকি সকালে? ভার্সিটিতে? সাইকেলে সিদ্ধেশ্বরী থেকে আত্মীয় বাড়ি কি যাচ্ছেন মোহাম্মদপুর? চাইনিজ রেস্টুরেন্টে বিয়ার দাওয়াতে যাইয়া সাইকেল পার্ক করছেন কি হাসতে হাসতে, শুভেচ্ছা জানাইতে জানাইতে? একেবারেই না।

না, ঢাকার ডেইলি লাইফের চলাফেরায় সাইকেল ইউজ করছেন না একেবারে, বুঝতে পারি। কেন করছেন না বা করতে পারছেন না—সেইটারেই আপনার প্রোবলেম বলছিলাম। ভেবে দেখলাম কিছু ইস্যু আছে এ ব্যাপারে, কিন্তু সমাধান নাই আপনার কাছে। ফলে, আপনাকে হেল্প করি একটু, হ্যাঁ?

প্রথম ইস্যু হলো—লোকে বুঝে ফেলছে আপনার সাইক্লিং রহস্য। ডেইলি লাইফে সাইকেল ইউজ করে টাকা বাঁচাচ্ছেন আপনি, আর লোকে ঠিক সেইটাই ভাবছে; কিছুতেই লুকানো যাচ্ছে না টাকা বাঁচাবার ব্যাপারটা। ওদিকে আপনি যাদের ছোটলোক ভাবেন তাঁরাও তো ঠিক ওই কারণেই সাইকেল চালায়; হায় হায়! ছোটলোকগুলি থেকে তাহলে নিজেকে আলাদা বলে দাবি করবেন কি করে?

রক মনু, প্রিচিং

আপনি হয়তো সাইকেলের বিভিন্ন উপকারের কথা বলছেন; ডায়াবেটিস থেকে হার্ট, ভুরি—কত কি! এগুলি সত্য; কিন্তু নিন্দুকরা কেবল টাকা বাঁচানোটাই দেখতে পায়!

তো, আপনার পয়লা কাজ হইলো ডিফরেন্স ক্রিয়েট করা; কার থেকে? আপনার ভাবনার ছোটলোকদের থেকে। দামি সাইকেল অবশ্যই ভালো ডিফরেন্স; তা তো আপনার আছেই। কিন্তু দূর থেকে দাম খোব একটা বোঝার উপায় নাই। ফলে আরো কয়েকটা দিকে খেয়াল করেন।

সাইকেলের পিছে ক্যারিয়ার রাখবেন না কোন; ক্যারিয়ার ছোটলোকের সাইকেলের একটা প্রধান বৈশিষ্ট্য; ওরা ক্যারিয়ারে আরেকজন লয়, বা সেক্স করতে চাওয়া ছাগল নিয়া পাঁঠাঅলা বাড়িতেও যায়, বা পিছে স্বামীরে উঠাইয়া শরীরে স্বামীর হাত উপভোগ করে; এইগুলা নির্ঘাৎ ছোটলোকি! ফলে, ক্যারিয়ার রাখবেন না সাইকেলের পিছে।

কিন্তু ক্যারিয়ারও দূর থেকে অত বোঝা যায় না; কিন্তু আপনাকে তো দূরের মানুষের ভাবনা পাত্তা দিতেই হবে। ফলে, আপনি একটা হেলমেট কেনেন। আসলে অলরেডি একটা হেলমেট আছে আপনার। কিন্তু, আপনি ভাবতেন—এ তো আইন মানা মাত্র! নাহ্, আপনার ভাবনার তলটা আমি বলছি।

দেখবেন, হেলমেট পইরা আপনি এখন ফুটপাতে সাইকেল চালাইতেছেন; কী, আইন গেলো কই? ওইটা আসলে আইন মানার ব্যাপার না; কোন ছোটলোক সাইকেল চালোয়াড়ের মাথায় হেলমেট পাইবেন না আপনি। আপনি বরং সেফটির যুক্তিটা দিতে পারেন। কিন্তু খেয়াল করেন, ঘোড়া অথবা ষাঁড়ের মতো চেহারার ইয়ামাহা ফেজার বা বাজাজ পালসার চালাবার সময় হেলমেট পরতে ইচ্ছা করে না আপনার। ফলে, সেফটির যুক্তি মানা গেলো না। তাইলে, ছোটলোক থেকে ডিফরেন্স ক্রিয়েট করাটাই হেলমেটের আসল কাজ। এইটা দূর থেকেও বেশ দেখা যায়! আর এতে করে বাসের হেলপারের শ্রদ্ধা পাইবেন ভালো; পুলিশের তুই-তোকারি থেকেও বাঁচবেন।

তবে, রাইতে একটু সমস্যা! আন্ধারে হেলমেট দেখা যায় না! এজন্য সাইকেলের পিছে একটা লাল বা হলুদ আলোর ব্যবস্থা রাখবেন। রাইতে সেইটা জ্বলবে আর পিছের বিভিন্ন ড্রাইভার বুঝে ফেলবে সাইনেই আছে এক মিডল-ক্লাস সাইক্লিস্ট! কারণ, ছোটলোকরা সাইকেলের পিছে লাইট লাগায় না। কিন্তু, দিন তো বদলাইছে; ছোটলোকরা মোবাইল ফোন ইউজ করা শুরু করার পরে তো অনেক দুঃখ পাইছিলেন আপনি; আর এখন হয়তো দেখবেন বহু ছোটলোক সাইকেলের পিছেও লাইট লাগাইয়া বেয়াদপ হইয়া উঠছে।

এই সমস্যার একটা সমাধান আছে! ভালো হয় আপনার পিঠে একটা ব্যাগ রাখতে পারলে; সেই ব্যাগের গায়ে একটা ক্রস থাকবে, সেই ক্রস জুড়ে থাকবে ছোট ছোট লাল লাইট; জ্বলবে আর নিভবে, বিলবোর্ডে যেমনটা দেখা যায়।

রাইতে পিছনে একটা বাতির ব্যবস্থা করা খুবই ইম্পর্ট্যান্ট। হরলিক্স বা বুস্ট বা কিটক্যাট বা ডল বা বিভিন্ন খেলনা বা রং-পেন্সিল বা ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলের বেতন নিয়া ভাবেন একবার। আপনার পিছে মা-বাপের ইনভেস্টমেন্টের পরিমাণ আইডিয়া করার চেষ্টা করেন একটা। নিজের দাম সম্পর্কে ভালো একটা ধারনা পাইবেন। এতো দামি একটা আপনাকে হারাবার ঘটনা সহ্য করতে পারবে না আপনার মা-বাপ!

ছোটলোকরা তো এইসবের মধ্যে নাই; ফলে ওদের দাম বেশ কম হবে। ওদের উপর ইনভেস্টমেন্ট নাই প্রায়; বরং ৫/৭ বছর থেকেই হয়তো নিজেই কামাই কইরা খায়। মন ভালো থাকলে কলাটা বা মূলাটা মা-বাপরে দিলেও দিতে পারে! অন্তত আপনার ভাবনাটা তো তেমনই; ছোটলোকদের প্রেম-ভালোবাসার অতো টাইম নাই, টাকাও নাই। ভাইবা দ্যাখেন, ৬ বছরের এক ছোটলোকের বাচ্চা দেড় বছরের আরেকটা বাচ্চারে কোলে নিয়া সাগর কলা খাওয়াইতে দেখলেই আপনার ছবি তুলতে ইচ্ছা করে; অতি আশ্চর্য এক অসাধারণ মমতা দেইখা ভ্যাবাচ্যাগা খাইয়া যান আপনি। তাইতো, আরেকজনরে খাওয়ানো যে ছোটলোকরা কোত্থেকে শেখে!

মোটের উপর আপনার অনেক দাম, নো রিস্ক প্লিজ! এইসব বুদ্ধি নেন, টাকা বাঁচান কিন্তু আপনারে ছোটলোক ভাবতে দিয়েন না। ওহ্, একটা জিনিস মনে ছিলো না; সাইকেলে বেল রাখবেন না, হর্ন লাগান, সাইকেল চালান।

৩১ মার্চ ২০১৪

Series Navigation