রক মনু

সলিমুল্লাহ খানের প্রেম: সাবধান রোকেয়া!

প্রিয় রোকেয়া,

আপনি গত বহুকাল; সাবধানতার মানে কি আর আছে সেইখানে? জানি না। তবু সাবধান রোকেয়া! এ যে সলিমুল্লাহ খানের প্রেম! আপনারে ভাসাইয়া নিতে ধাবমান! 

-------------------------

আপনারে ইদানিং পড়ছেন সলিমুল্লাহ খান—‘একবার প্রতিবেশী কোনো দেশ কোনো কারণে নারীস্থান আক্রমণ করে। কিন্তু পুরুষ সেনাবাহিনী যুদ্ধে হারিয়া যায়। দেশের স্বাধীনতা বিপন্ন হয়। এমন সময় নারীজাতির প্রতিনিধিরা বাহুবলে নহে, বুদ্ধি ও বিজ্ঞানবলে দেশ রক্ষা করিতে সমর্থ হয়েন।’

এতে নাকি ‘গভীর ছক’ ‘দেখা যাইতেছে’, ‘ ভারতবর্ষের পরাধীন অবস্থার জন্যও পুরুষজাতির শাসনই দায়ী।’ এবং আপনি নাকি ‘পরাধীনতার দায় চাপাইয়াছেন ‘জেনানা’ প্রথা তথা পুরুষজাতির শাসনব্যবস্থার ঘাড়ে।’

আপনি লিখছিলেন, ‘ জানেন ভগিনী সারা। ভারতবাসীর বুদ্ধি সুপথে চালিত হয় না–জ্ঞান বিজ্ঞানের সহিত আমাদের সম্পর্ক নাই। আমাদের সব কার্যের সমাপ্তি বক্তৃতায়, সিদ্ধি করতালি লাভে! কোন দেশ আপনা হইতে উন্নত হয় না, তাহাকে উন্নত করিতে হয়।’

খান-ই জানাইতেছেন, ‘বুদ্ধি ও বিজ্ঞানবলে দেশ রক্ষা করিতে সমর্থ হয়েন।’, তিনিই আবার এর অনুবাদ করেন– পুরুষের বদলে নারীর শাসন এই দেশ রক্ষার কারণ!

ভাইবা দেখেন রোকেয়া, খানের এই বিশ্লেষণ দিয়া আপনারে যে পাঠক-ই চিনবে, সে-ই আপনার বুদ্ধিমত্তার বালখিল্যতায় কিরূপ হাস্যরব উৎপাদন করিবে! ভারতবর্ষ যদি পুরুষশাসনের কারণে পরাধীন হয় তাইলে পৃথিবীতে স্বাধীন কোন রাষ্ট্র কি আর থাকতে পারে? পৃথিবীর সবদেশের শাসনই তো পুরুষের হাতে! পুরুষজাতির শাসন দিয়াই বৃটিশরা তো নিজের স্বাধীনতাই রক্ষা করে নাই কেবল, ভারতরেও অধীন কইরা রাখছে! খানের ফরাসি বুদ্ধির এই ফালতু তত্ত্ব তিনি চাপাইছেন আপনার মৃত ঘাড়ে। ‘সুলতানার স্বপ্ন’ উত্তম বিপ্লবী সাহিত্য হিসাবে পরিচিত হইতে কি সেইখানে ঔপনিবেশিকতার কার্যকারণতত্ত্বও আবিষ্কার করা দরকার বইলা আপনার মনে হয়? সলিমুল্লাহ খান এই আবিষ্কার তাঁর অঞ্জলিতে নিয়া আপনার কাছে প্রেম নিবেদন করতেছে; এই প্রেম আপনি কি নিবেন?

সাবধান রোকেয়া!

–মনু

 

লিংক: http://dhumketo.blogspot.com/2011/12/by_2092.html (বেগম রোকেয়ার এয়ুটোপিয়া by সলিমুল্লাহ খান)

১৪ ডিসেম্বর ২০১১ ফেসবুক নোটে পাবলিশড