রক মনু

হেটারোসেক্সুয়াল ইন্টারকোর্স হিসাবে ইতিহাস বা আর্ট

জন্মকথা নামে একটা গান নাকি কোলকাতাই কবির সুমনের মন কাড়ছে। গানটা বাংলাদেশে পয়দা হওয়া, বাঙালি নেশনালিস্ট গান, তিতুমীর কলেজের কোন পোলার। শুনছেন নাকি কেউ?

কবির সুমনের মন কাড়তে গানের মাঝে থাকা ‘দেশভাগ’ নামের কনসেপ্ট বেশ কামে লাগছে মনে হয়! এর বাইরে হেটারোসেক্সুয়াল একটা টেলের ভিতর দিয়া বাংলাদেশের পয়দা হওয়ারে জাহির করতেছে গানটা।

-------------------------

শ্লোগান মার্কা গান এইটা। ভিজ্যুয়ালাইজেশনে মাইয়ার পিছু লওয়া পোলা (স্টকিং) দেখানো হইতেছে, মাইয়া আড়ালে আবডালে যাইতেছে, পোলা পিছ ছাড়ে না! মাইয়ারে ধরাই পোলার মঞ্জিল, মাইয়ার চাওয়া মনে হয় একটা ‘কটাক্ষ’ দিয়া বোঝানো হইতেছে, এর বাইরে মাইয়া বেশ দূরে দূরেই থাকতেছে।

তবু পোলা পিছে পিছে যাইয়া ৫২’র ২১ ফেব্রুয়ারি নাকি মাইয়ারে প্রেগন্যেন্ট বানাইয়া ফেলছে, বাচ্চা হইছে নাকি ৭১’র ১৬ ডিসেম্বর।

এই বাচ্চাটা বাংলাদেশ, যদিও ইতিহাস মোতাবেক বাংলাদেশ হইছে ২৬ মার্চ। এদিকে ৫২’র ২১-কে কনসিভ করার ডেট ধরাকে কেমনে দেখেন আপনারা?

ভাষার জন্য খুন হইছেন আসামেও, ৫২’র ঢাকার চাইতে বেশি। তাতে আসাম নামের কোন রাষ্ট্রকে কেউ কনসিভ করে নাই, হইতে পারে আসামীরা বাজা, বা স্টকিং তাগো অপছন্দ! আবার পাকিস্তানে বাংলার দাবিটা পাকিস্তান রাষ্ট্রের মাঝেই, পাকিস্তান অস্বীকার কইরা না। বাঙালি নেশনালিজমের স্টার্টিং পয়েন্ট ধরলেও সেইটা পাকিস্তানের লগে নেসেসারি কোন ঝগড়ার উছিলা না, রাষ্ট্র বহুজাতির কনফেডারেশন হইতে পারে। পাকিস্তান কনফেডারেশন হইতে রাজি হয় নাই, এমনকি ইন্ডিয়ায় বহুজাতির যতটা রিকগনিশন (ইন্ডিয়াননেস প্রায়োরিটি পাইলেও) আছে, ততটাও না। পাকিস্তানের এই নারাজিই বাংলাদেশ হবার হিস্ট্রিক্যল কন্ডিশন। ইতিহাসকে রোমান্টিসাইজ করলে, মানুষের জনম-মরণ-সেক্স দিয়া ইতিহাস বুঝতে গেলে এমনই গলদে পড়তে হয়।

দেশভাগের বেদনাও এক মজার জিনিস, কারো বেদনা দেখা যায়, কারো ফূর্তিও পাইবেন আপনে! ১৯৪৭ সালে কত ইংরেজও তো বেদনা পাইছে কলোনি ছাড়তে হওয়ায়, সেই বেদনা কমাইতে পরে হয়তো কমনওয়েলথ পাইলাম! ওদিকে তামিলনাডু আর শ্রীলংকায় তামিল ভাগাভাগিতে কোলকাতার মতো অতো বেদনার চাষবাস দেখেন না অনেকেই, বা পাঞ্জাবে কতটা আছে? দেশভাগের দায় লইয়া আলাপ করেন অনেকে, কিন্তু দেশভাগের এতো বেদনা যারা পান তারা কি ভাবছেন, পশ্চিমবঙ্গ আর বাংলাদেশে কত কত মাইনোরিটি টর্চারের ঘটনা ঘটলেও ১৯৪৬ সালের দাঙ্গার মতো দাঙ্গা আমরা পাই নাই তাগো বেদনার দেশভাগের পরে?

দেশভাগে কোলকাতা আলবত গরিব হইছে, কিন্তু এই কোলকাতা তো আস্ত দেশ লইয়াও কলোনিয়াল ভারতের ক্যাপিটাল দিল্লি যাওয়া ঠেকাইতে পারে নাই! আজকে কোলকাতারে যেমন শোষে দিল্লি, ভাগ না হওয়া বাংলার ক্যাপিটাল কোলকাতা ভিন্ন কিছু করতো কি? বাংলার ক্যাপিটাল সোনারগাঁও ট্রান্সফার করতে রাজি কোলকাতা?

#রক_মনু