উঁকির মজা বোঝেন না? ফারুকীর ডুব দেখেন

মহল্লার রাস্তায় নয়া মুখ দেখলেই আমরা গরম হইয়া যাই, মাইয়া হইলে তো দুই দিনের ভিত্রে জাইনা ফেলি কই যায়, কার লগে হাসে, বাদাম খায়। মহল্লার কোন ফ্ল্যাটে কে যায় আসে, বিয়া হইছে কি হয় নাই–এগুলা জানা লাগে আমাদের, স্নিকিং/উঁকি মারা তো আমাদের রগে রগে! রুম আন্ধার কইরা আমরা পাশের বিল্ডিং-এর খোলা জানলায় চাইয়া থাকি।

-------------------------

এতে আমরা যেই মজা পাই, সেই মজাটা আপনে পাইতে পারেন ফারুকীর ডুবে। চিপাচাপায় থাইকা গোপনে নজর বাড়াইলে, মানে উঁকি মারলে যেমন একটু দূরের, পুরাটা না দেইখা আন্দাজ কইরা লইবার মজা পাই আমরা মহল্লার লোক, সেই মজাটা দিছেন ফারুকী। এবং মজাটা পুরাই পাইবেন কারণ, কাহিনির দরকারে যে গোপনে দেখাইতেছে ক্যামেরা, তা না, হুদাই! মনে হয়, কোলকাতাই এসথেটিক্সে ভালো সিনেমাটোগ্রাফির জন্য এই বেহুদা উঁকির ভিজ্যুয়াল দরকার হয় :), অ্যাওয়ার্ড-ফ্রেন্ডলি। উঁকির এসথেটিক্স যাগো ততো নাই, তারা ভালো ছবকও পাইবেন। স্যরি টু সে, এইগুলা নাপছন্দ আমার, তবু ট্রেলার থিকা স্ক্রিনশট দিতেছি, দেখেন। জনসেবায় রক মনু।