প্রোপাগান্ডা বিয়ন্ড কনটেক্সট নাকি চিন্তার কলোনাইজেশন?

ইন্ডিয়ার এক লোক এইটারে প্রচার করছেন। ভাইবা দেখলাম হাসিই পাওয়া উচিত আমার, ইন্ডিয়া সেক্যুলার-এনভায়রনমেন্টালিস্ট বেকুবদের কান্ড-কারখানা দেইখা! কেন?

যেইদেশে মাইয়া বাচ্চা হইলে জিন্দা কবর দিয়া দেয়, যেই দেশের কালচারে মাইয়া হওয়া মানে আগের জনমে অনেক অনেক পাপ করা বুঝায়, যেইদেশে ৭০% কনজ্যুগাল রিলেশনে বউয়েরা রেপড হন, যেইদেশে গ্যাঙ রেপ ঘটতেছে হামেশা, রেপিস্টরা পার পাইয়া যায় আবার কম্যুনাল কারণে, রেপের দোষ হয় ভিকটিমের, সেই দেশে গাছেরা যদি মাইয়া হয়, মাইয়া হিসাবে প্রচার করা হয় তাতে গাছদের হায়াত আরো কমে! গাছের চারা যদি মাইয়া, তারে লাগাইবে, নাকি জিন্দা কবর দেবে? লাল রক্তও তো ভারতে অতি ডিজায়্যারাবল ড্রাগ! পোলা সন্নাসী হিসাবে দেখাইলে হায়াত কিছু বাড়তে পারে বরং!

-------------------------

এই বেকুবেরা যদি কামিয়াব হয়, ভারতের পোলারা যদি বিশ্বাস করে যে গাছেরা আসলে মাইয়া তাইলে খবর আছে! আজকেও খবর দেখলাম, গ্রামের লোকেরা গুজবে মন দিয়া ৭ জনকে পিটাইয়া খুন করছে, গণধোলাই তো ভারতে কমন! সেক্যুলার বেকুবের এলেমে ভরসা রাইখা খুন করার আগে গাছদেন গ্যাঙ রেপ করছে, সামনের দিনে এমন নিউজও পাইতে পারেন!

নোট: এইটা দিয়া চিন্তার কলোনাইজেশন চেনার একটা সূতা পাইতে পারেন… এইটা এমন এক জিনিস যেইটা এমনকি পুরা কনটেক্সটও ভুলাইয়া দিতে পারে আপনারে…! এইখানে আরো একটা ব্যাপার থাকতে পারে: এই লোক মাইয়াদের যেমন ভাবেন সেইটাই দেখা যাইতেছে এই ছবিতে। গাছের মতোই, সাইলেন্ট, নো রেজিস্টিং ক্যাপাবিলিটি, মোবিলিটি থাকা সম্ভব না, এরেই তো এক কথায় ‘অবলা’ কয় লোকে!