মীনার বুলি: জাতিসংঘের সালিশিতে পাইলাম কমন বাংলা

মীনার বুলি: জাতিসংঘের সালিশিতে পাইলাম কমন বাংলা

বরিশালের মনু চট্টগ্রামের কুতুবের লগে কোন বাংলায় আলাপ করবে? বিএনপি প্রেস রিলিজ দেবে কোন বাংলায়? জনসভায় খালেদা জিয়া বলবেন কোন বাংলায়? একটা কমন বাংলা দরকার এইসব কাজে। এই ব্যাপারে শেখ হাসিনা বা আওয়ামী লীগের বা আওয়ামী বুদ্ধিজীবীদের পজিশন একদম ক্লিয়ার আছে। এইটার নাম দিলাম বাঙালি কম্যুনিটির কমন বুলি বিষয়ে আওয়ামী এসথেটিক্স। আওয়ামী লীগের অফিসিয়াল বুলিই …

রক মনু

শহীদ মিনার স্টেটের নয়, কম্যুনিটির স্পেস মাত্র

শহীদ মিনার একটা বাংলাবাদী স্পেস, বাঙালির স্পেস, বাঙালি মানে বাংলাভাষী কম্যুনিটি; বাংলাদেশে বাঙালি বাদে আরো আরো কম্যুনিটি আছে এবং থাকবে; তাই বলে বাংলাবাদী ওই স্পেসে স্টেটের সকল কম্যুনিটির নাগরিকের অভিন্ন হক আছে বলা যায় না। গীর্জায় যেমন খৃস্টান ছাড়া কারো হক নাই। বা মন্দিরে থাকতে পারে না মোসলমানের হক। তেমনি শহীদ মিনারে উর্দু কবি ইকবালের …

রক মনু

রাজনীতি যেন নীতির পাহারাদার না হয়

নীতির পাহারায় চলা বা নীতির পাহারাদার হওয়া রাজনীতিবিদের কাজ না। নীতিবান হওয়াকে বলা যেতে পারে সততা। নীতি অনমনীয় জিনিস, ফলে সততাও। অনমনীয় বলেই রক্ষণশীল; নীতিবান, এক কথার মানুষ আপনার পছন্দ হতে পারে, কিন্তু এমন কেউ যখন সমাজের নেতা হয়, সমাজ তখন থেমে যায়। কিছু উদাহরণ দিয়া বলি বরং। গণতন্ত্রের কিছু ধরন সেই গ্রীক ‘সিটি স্টেট’ …

রক মনু

হাসিনা-খালেদার উপর ভরসা রাখছে সম্মিলিত পশ্চিম

সার্বভৌমত্বের পুরানা ধারনায় মনে হতে পারে যে বান কি মুনের ফোন বাংলাদেশের সার্বভৌমত্বের উপর হুমকি। কিন্তু যেকোন একটা আন্তর্জাতিক সংস্থার সদস্য হবার অর্থই হলো—সেই সংস্থা সদস্য দেশের বিভিন্ন বিষয়ে কথা বলবে, ভূমিকা রাখবে, পরামর্শ দেবে। ওআইসি বা জাতিসংঘ বা সার্ক হাসিনা-খালেদার মধ্যস্ততা করতেই পারে, তাতে সমস্যার কিছু নাই। বান কি মুনের ফোনের গুরুত্ব সম্ভবত ভিন্ন …

ততোটা সরকার ফ্রেন্ডলি হয়নি নীতিমালা

ততোটা সরকার ফ্রেন্ডলি হয়নি নীতিমালা

হাসিনা সরকার যে বেশ লাজুক সেই সন্দেহ গোড়া থেকেই ছিলো আমার; অগাস্টের শুরুতে ‘সম্প্রচার নীতিমালা’ পেশ করার মাধ্যমে সন্দেহটা পোক্ত বিশ্বাসে পরিণত হলো। লাজুক বলেই বেশ কিছু জিনিস একদমই ঝাপসা থেকে গেলো নীতিমালায়। এমনকি, নীতিমালাটি করতেই হলো সরকারের ওই লাজুকতার কারণে।  বিভিন্ন মিডিয়া বন্ধ করে দিতে নীতিমালা লাগে নাই কোন, মানবাধিকার অ্যাডভোকেট বা সাংবাদিকদের বন্দি …

অমিয় ঘোষের মুক্তি একটা খুশির ঘটনা

অমিয় ঘোষের মুক্তি একটা খুশির ঘটনা

জনাবা ফেলানি বেগম খুনে অভিযুক্ত অমিয় ঘোষকে বেকসুর খালাস দিছে বিএসএফ-এর নিজস্ব আদালত। ঐ আদালত এবং ঐ অমিয় ঘোষকে অভিনন্দন জানাই আমি; একটা কারণ– নির্দোষের খালাস, আর এক কারণ– স্টেট ইন্ডিয়াকে বাংলাদেশের শত্রু হিসাবে চিনাইয়া দিচ্ছে ইন্ডিয়ারই এক আদালত। এই রকম একটা খুশির ঘটনা বোঝা দরকার। একরামুল হক শামীমকে ধন্যবাদ দিয়া শুরু করতে হচ্ছে আমার। …