রক মনু

বিরহ

যে রাধা নাই ছানাপোনায় সে আর বিরহ বোঝে কতো!  ও কানাই নিঠুরিয়া বড়ো ও ননদ কূলের দালাল উপাসী স্যাডিস্ট ভাইয়ের উজির। ————————- গাইল পাড়ে, অভিশাপ দেয় বিরহী বাজা, বিরহে মরে মরে রাধা– বিরহ বোঝে না। আহা বাছুর এ মায়া অঙ্গে পানি ঢালে। গাইল আসে না মনে অভিশাপে সরে না মন। ঘুমাইলো কূল, দরজার কপাট বিছনা …

রক মনু

আমার প্রথম অনুবাদ কবিতা

বিডিনিউজের আর্টস-এ সম্পাদনা বিভাগে ব্রাত্য রাইসু’র সহযোগী হিসাবে কাজ করতাম তখন। নোবেল পাবার পরে টমাস ট্রান্সট্রোমারের একটা সাক্ষাৎকারের অনুবাদ করছিলেন ফাতেমা সুলতানা শুভ্রা। সাক্ষাৎকারের মধ্যে কিছু কবিতা ছিলো।  সেগুলি শুভ্রা ইংরাজিতেই রাখছিলেন সম্ভবতঃ; সময়ের অভাবে সেগুলি আর ওনাকে অনুবাদ করতে না বলে আমি অনুবাদ করে দেই। শুভ্রা বলছিলেন আমার নাম দিতে; আমি আর দেই নাই। …

কবিতার বই:: বিবাহিত

কবিতার বই:: বিবাহিত

ইবুকের নিচের দিকে ‘কন্ট্রোল প্যানেল’ পাবেন, একদম বায়ে ‘ফুল স্ক্রিন’ বাটন; এছাড়াও ডাবল ক্লিক করলে জুম ইন/জুম আউট হবে। [dciframe]https://dl.dropboxusercontent.com/u/6328678/bibahito/bibahito.html,100%,480px,1,auto,border:1px solid yellow;align:left;[/dciframe] কোন কোন কবিতায় ফেসবুক পাঠকদের কমেন্ট দেওয়া আছে; কমেন্ট সাইন দেখবেন, সেইখানে মাউসের কার্সর নিলেই কমেন্ট দেখতে পাবেন।

রক মনু

কবির ড্রয়িং

অগ্রজ কবিরা উপমায় উপমায় ছুঁয়েছিলো নীলিমা খুঁজেছিলো বায়ু চুপসানো বেলুন ফুলে ফুলে জেনেছিলো হয়তো বা স্বভাবের সীমা।   একালের কবি তাই লোকায়ত শব্দে গড়েন লোকাতীত বাক্যসকল নিখিলের এপারে মানুষের হৃদয় হরিণের শরীর নিয়া ছোটে নাকো বাঘের সম্মুখে।   নেহায়েৎ বাঘের খাদ্য এই হরিণ শরীর আর কোন অর্থ নাই; হরিণের রক্ত প্রাকৃতিক অনুপাতে সরল রাসায়নিক সামাজিক …

রক মনু

চলো প্রেমিক, বিয়া করি

বিবাহিত বান্ধবী গল্প করে– কী করে কী হয় কিভাবে কিভাবে কী করে; বা করবার কথা যদি ভাবে করা হইয়া যায় কখোন! হায়, বাকি থেকে গেলো ভাবা; বলে– হায়, ভাবার সুখ কি পাবো না এ জনমে! আমি শুনি অবাক চোখ দেখাই, বলি— লজ্জা লজ্জা মুখে বলি, যাহ্। এই বিধেয় এই দেশে, শোনো আমার প্রেমিক।   তোমার …

প্রায়োগিক কফিলদর্শন

প্রায়োগিক কফিলদর্শন

বিপ্লবের আবাহন ছিলো সেই গানে “বুক টান, বুক টানটান করে দাঁড়াও…” ————————- এই ডাক মনে ধরেছিলো বিপ্লবী অপটিমিস্ট, আত্মহারা, স্বয়ংসিদ্ধান্তে কুবক্ষা এক নারীর। প্রতিপক্ষ নরগণ বিষমযৌনী চৈতন্য নিয়া ঘটমান বর্তমানে রায় দেন, “অ্যাপিলিং”।   ফেসবুক নোট